প্রফেসর জাহানারা হক, প্রাক্তণ অধ্যক্ষ(সরকারী ইডেন ও বাংলা কলেজ)

LANDOWNER: APARAJITA

প্রফেসর জাহানারা হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর অর্থনীতি বিভাগ থেকে অনার্স এবং ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাজ্য) থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করে ইডেন কলেজ এ প্রভাষক পদে যোগদানের মাধ্যমে শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন। এর পরে বদরুন্নেসা কলেজ, তিতুমীর কলেজ, ঢাকা কলেজ ও চট্টগ্রাম কলেজে সুনামের সাথে শিক্ষকতা করে প্রফেসর পদে পদোন্নতি পান। সুনামের সাথে ইডেন মহিলা কলেজ ও সরকারী বাংলা কলেজ এ অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। অবশেষে ১৯৯৫ সালে সরকারী বাংলা কলেজ থেকে অধ্যক্ষ পদে কর্মরত অবস্থায় অবসর গ্রহণ করেন। কর্মজীবনের শুরু থেকেই তিনি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে যুক্ত হন। তারই ধারাবাহিকতায় এখন পর্যন্ত নিজেকে বিভিন্ন সংগঠনের সাথে যুক্ত রেখেছেন। Bangladesh Economic Association , Business and Professional Women’s Club, Women for Women সহ বহু প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত আছেন। অবসর জীবনে এসেও নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন সামাজিক উন্নয়নমূলক নানা কাজে। নিয়মিতভাবে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষণাধর্মী লেখালেখি করছেন। তার গবেষণাপত্র দেশী-বিদেশী জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি রাজধানীর আজিমপুরস্থ “এস.ই.এল. অপরাজিতা” প্রকল্পের সম্মানিত ল্যান্ডওনার। এস.ই.এল. এর ব্যবসায়িক কার্যক্রম নিয়ে তার সাথে কথা বলেছেন- আমানুল­াহ নোমান

এস.ই.এল. বার্তা ঃ এস.ই.এল. এর সাথে আপনার পরিচয় কিভাবে হলো?

প্রফেসর জাহানারা হক ঃ সঠিক দিন তারিখ আমি বলতে পারবোনা খুব সম্ভবতঃ ২০০৬ সালের শেষ দিকে আমাদের ৬/৯ শেখ সাহেব বাজারের দো’তলা ও সংলগ্ন চতুর্থ তলার বাম দিকটা বিক্রি করতে চাচ্ছিলাম। এর কিছুদিন পূর্বে আমি আমার স্বামীকে হারিয়েছি। কিন্তু দালাল, এলাকার খদ্দের ও মাস্তানদের উৎপাতে আমি খুব বিপদগ্রস্থ। এমতাবস্থায় আমার পরিচিত এক বান্ধবীর পুত্র আর্কিটেক সাফি আমাকে এস.ই.এল. এর সন্ধান দেয়। এর পরে আমি পান্থপথে এস.ই.এল. এর অফিসে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল সাহেবের সাথে দেখা করি। এর আগে আমার কখনো পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলেও এস.ই.এল. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল সাহেবের অমায়িক ব্যবহার আমাকে বিশেষভাবে আকর্ষণ করে। মাসখানের মধ্যে আমার বাড়ির সকল তথ্যাদি সম্পর্কে অবগত হয়ে জমিটা উন্নয়ন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। আমার Home Building এ সামান্য কিছু লোন ছিল তার দায়িত্বও তিনি নেন। এভাবেই শুরু হয় “এস.ই.এল. অপরাজিতা” প্রকল্পের কার্যক্রম।

এস.ই.এল. বার্তা ঃ ডেভেলপার হিসেবে এস.ই.এল.-কে কেন পছন্দ করলেন?

প্রফেসর জাহানারা হক ঃ পূর্বেই বলেছি এ ব্যাপারে আমার কোন প্রাকঃঅভিজ্ঞতা ছিলনা। ইঞ্জিঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল সাহেবের কথাবার্তায়, তার Integrity I Commitment সম্পর্কে জ্ঞাত হই। তিনি অচিরেই আমার একজন পরামর্শক হয়ে আমাকে মাতৃসমা মনে করে সকল সমস্যার সমাধানে এগিয়ে আসলেন। এ ছাড়াও এস.ই.এল. এর অন্যান্য স্টাফরাও আমাকে যথাযথ সম্মানের সাথে বিবেচনা করেছেন। এর মধ্যে জনাব মোঃ শাহজাহান সাহেবের নাম বিশেষভাবে উলে­খযোগ্য। যে কোন সমস্যা সমাধানের জন্য তাদের সহযোগিতার দ্বার উন্মুক্ত ছিল ।

এস.ই.এল. বার্তা ঃ এস.ই.এল. এর কোয়ালিটি ও কমিটমেন্ট সম্পর্কে কিছু বলুন।

প্রফেসর জাহানারা হক ঃ এস.ই.এল. এর লক্ষ্য Motto-তে লেখা আছে "Quality comes first, Profit is its logical sequence”কথাটা আমাকে দারুন ভাবে আকৃষ্ট করে। বলাবাহুল্য পরবর্তীতে কাজ দ্বারা এস.ই.এল. তাদের কমিটমেন্ট পূরণ করেছে। এর মধ্যে মূল নক্শার আমুল পরিবর্তন করলেন আলোচনার ভিত্তিতে। যথাসময়ে কাজ শেষে দু’বছরের মধ্যে ২০০৯ সালের ৩১ জানুয়ারি বাড়িটি হস্তান্তর করলেন সুন্দর এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে।

এস.ই.এল. বার্তা ঃ এস.ই.এল. এর কোন দিকটি আপনার কাছে সবচেয়ে ভালো লেগেছে?

প্রফেসর জাহানারা হক ঃ সময়ের Commitment এস.ই.এল. এর একটি উলে­খযোগ্য দিক। এছাড়া বাড়ি হস্তান্তরের পর নানা সমস্যায় এস.ই.এল. এর সহায়তা পেয়েছি। ল্যান্ডওনার এবং ফ্লাটওনারদের মাঝে একটি স্থায়ী বন্ধনের চেষ্টা করে দেন এস.ই.এল.। ফ্লাটওনারদের কাছে বাড়ী হস্তান্তরের জন্য ফ্ল্যাটওনার্স এসোসিয়েশন গঠন করে দেয় এস.ই.এল.। ফ্ল্যাটওনার্স এসোসিয়েশন গঠন পূর্ব এবং পরবর্তী তিন মাস পর্যন্ত সবকিছুর তত্ত¡াবধায়ন করে এস.ই.এল.। হস্তান্তরের মনোরম অনুষ্ঠানে এস.ই.এল. এর পক্ষ থেকে এক সেট ডিনার সেট উপহার দেন। বক্তব্যে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল সাহেব বলেন যে, ‘এটা পরস্পরের সৌহার্দ গঠনের প্রতীক হিসেবে দেয়া হলো। সবাই যেন একে অপরের বিপদ-আপদে গিয়ে আসেন।’ এ ছাড়াও মাঝে মধ্যে সবাইকে গেট-টুগেদার করার পরামর্শ দেন।

এস.ই.এল. বার্তা ঃ এস.ই.এল. এর জন্য আপনার পরামর্শ কী?

প্রফেসর জাহানারা হক ঃ এস.ই.এল. এর আফটার সেলস সার্ভিস এর ব্যবস্থাপনা আরও উন্নত হওয়া প্রয়োজন। বাড়ীর ছোট মাঝারী কিংবা বড় সমস্যাদি যেমন পয়ো ও পানি নিষ্কাশন, গিজার পানি ট্যাংক, ইলেট্রিক্যাল বা অন্য কোন সমস্যার জন্য এস.ই.এল. এর পর্যবেক্ষণ আরও নিবিড় ও ত্বরান্বিত সমাধান হওয়া উচিত।বাড়ীর Maintenance এ বিশেষ করে সামনের View মাঝে মাঝে Reform I Reformulate করলে একজন Developer এর পরিচিতি ও ইমেজ যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি আবার বাড়ির সৌন্দর্য্য অটুট রাখবে।প্রতিটি বাড়ির নিচে ও ছাদে সুশৃঙ্খল Gardening এর ব্যবস্থা করা উচিৎ। বিশেষ করে ছাদে কাপড় শুকানোর জায়গা ছাড়াও বাগান তৈরীর স্থায়ী ব্যবস্থা করে দিলে সুন্দর বাগান দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে পরিবেশ উন্নত হবে।এ ক্ষেত্রে এস.ই.এল. এর Motto “Quality comes first, Profit is its logical sequence” সত্যিকার অর্থে প্রতিফলিত হবে। সর্বোপরি আমি এস.ই.এল. এর কল্যাণ এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি।